পূর্ণ মনোযোগী হওয়ার কৌশল: এক সময়ে মাত্র একটি কাজে মনোযোগ দিন


  • By
  • August 9th, 2018
  •    
  • পড়তে সময় লাগবে: 4 minutes
  • 2,561 views

একবারে অনেক কিছু করার চেষ্টা করলে আপনি কোনও কাজেই ভালোভাবে মনোযোগ দিতে পারবেন না।

যদি একগাদা প্রজেক্ট নিয়ে একসাথে কাজ করা শুরু করেন, তবে ফলাফল ভালো হবে না – এটাই স্বাভাবিক। অনেক বেশি পরিশ্রম করার পরও খারাপ ফলাফল পেলে কাজের ওপর থেকে আগ্রহ চলে যাওয়ার সাথে সাথে আত্মবিশ্বাসেও চিড় ধরবে। এবং একটা সময়ে হাল ছেড়ে দিয়ে বসে থাকবেন।

তবে এর একটি খুব সহজ সমাধান রয়েছে। তা হল, একটি সময়ে শুধুমাত্র একটি কাজেই মনযোগ দেয়া। তাহলেই দেখবেন কাজটি সুন্দর ভাবে হচ্ছে। মনোযোগী হওয়ার কৌশল হিসেবে এটি অসাধারন।

আপনি যদি লিওনার্দো দা ভিঞ্চির থেকে অনুপ্রাণিত হয়ে একই সাথে একজন শিল্পী, বিজ্ঞানী, দার্শনিক, স্থপতি – ইত্যাদি হতে যান, তবে বিপদে পড়বেন।
এইসব ইউনিভার্সাল জিনিয়াসদের সাফল্য আমাদের সামনে এমন ভাবে তুলে ধরা হয়, যেন তাঁরা একবারেই করে ফেলেছেন। আমাদের বলা হয় তাঁদের জীবন থেকে অনুপ্রেরণা নিতে। কিন্তু আসল গোপন কথাটিই বেশিরভাগ বই বা লেখায় বলা হয় না। আর তা হল, এঁরা একটার পর একটা বিষয় নিয়ে গবেষণা ও অনুশীলন করেছেন। একসাথে দুই-পাঁচটি নিয়ে মনোযোগী হননি। আপনি যতবড় জিনিয়াসই হন না কেন, আপনি একজন মানুষ, আর মানুষের মস্তিষ্ক একসাথে অনেক কাজ করা বা “মাল্টি টাস্কিং” এর জন্য তৈরী নয়।

আর মাল্টিটাস্কিং এর কুফল শধু কাজ করার ক্ষেত্রেই নয়, এক সময়ে কয়েকটি বিষয় নিয়ে চিন্তা করলেও মস্তিষ্ক ক্লান্ত হয়ে পড়ে।

চলুন জেনে নিই পূর্ণ মনোযোগী হওয়ার কৌশল হিসেবে এক সময়ে একটি বিষয়ে ফোকাস করার প্রধান কয়েকটি কারণ:

আপনার মেমোরি ভালো কাজ করবে:

বর্তমানে এমন অবস্থা হয়েছে, যে আমরা না চাইলেও নানান ধরনের তথ্য সারাক্ষণ আমাদের মাথায় ঢুকছে। পেপার-পত্রিকা, ইন্টারনেট, সোশ্যাল মিডিয়া, রেডিও-টিভি – এসব সব মাধ্যম প্রতিনিয়ত আমাদের মাথায় অপ্রয়োজনীয় তথ্য ঢোকাচ্ছে।

ঘুম থেকে ওঠার পর থেকে ঘুমাতে যাওয়া পর্যন্ত আমরা একটি নির্দিষ্ট মাত্রার তথ্য প্রসেস করতে পারি। আপনি যদি কখনও লোকাল বাসে চড়েন, তবে হয়তো দেখেছেন যে বাসের হেল্পার বা চেকার একজন যাত্রীর কাছে একবারের বেশি ভাড়া চাইতে আসে। এটা কিন্তু তাদের দোষ নয়। দিনে তাদের শত শত মানুষকে দেখতে হয়, এবং এত চেহারা তারা মনে রাখতে পারে না। প্রতিনিয়ত যাত্রী ওঠা নামা করায় তারা কার কাছ থেকে কখন ভাড়া নিয়েছে, এই ব্যাপারে কনফিউজড হয়ে পড়ে। এই কারণেই মাঝেমধ্যে এমনটা হয়। এভাবে চলতে চলতে তাদের মূল স্মৃতিশক্তিতেও বাজে প্রভাব পড়ে।

memory brain

একই ভাবে, আপনি কাজ করার সময়ে যখন বার বার একটি থেকে আরেকটি কাজে মনোযোগী হন, তখন আপনার মস্তিষ্ক আগেরটিকে অপ্রয়োজনীয় ভেবে সেখান থেকে কিছু ডাটা ফেলে দেয়, এর ফলে আগের কাজটির ছন্দ নষ্ট হয়। আবার বর্তমান কাজ থেকে আগের কাজে ফিরে গেলেও একই ব্যাপার ঘটে – এতে করে কোনও কাজেই পূর্ণভ মনোযোগ দেয়ার উপায় থাকে না।

অনেক সময়েই আমরা আগের কাজে ফিরে গিয়ে মনেই করতে পারি না যে আমরা আসলে কি করছিলাম। কথা বলার ক্ষেত্রেও এমনটা হয়। একটি টপিকে কথা বলতে বলতে অন্য টপিকে চলে গিয়ে আবার যখন মূল টপিকে ফিরে আসতে যাই- তখন মনে হয়: “কি যেন বলছিলাম?”

আমরা যখন কোনও মানসিক পরিশ্রমের কাজ করি, তখন যদি কাজের মাঝে ইমেইল চেক করা, মেসেজ পড়া বা মেসেজের জবাব দেয়া, সোশ্যাল মিডিয়া পোস্টে কমেন্ট করা – ইত্যাদি করি, তবে মূল কাজে ব্যাঘাত ঘটে। অনেক সময়ে ভুলেই যাই যে কাজটি কোন জায়গায় ছেড়েছিলাম।

মেমোরির এই সাময়িক সমস্যা এক সময়ে মূল মেমোরিতেও বিরূপ প্রভাব ফেলে। চট করে কিছু মনে করতে না পারা, জানা জিনিস মুখে না আসা – ইত্যাদি সমস্যা দেখা দেয়। আজকাল তরুণদের মাঝে এই সমস্যা দেখা দেয়ার কারণ, কাজের মাঝে ফোন, ফেসবুক – ইত্যাদি চেক করা।

কাজেই, মেমোরিকে যদি ভালো ও কার্যকর রাখতে চান, তবে একটা সময়ে একটি কাজেই গভীর মনোযোগ দিন। এই পদ্ধতিতে আপনার মস্তিষ্ক শান্ত থাকবে এবং কাজও ভালো হবে।

আসল উদ্দেশ্য পূরণে সুবিধা হবে:

যে কোনও একটি কাজ করা মানে একটি উদ্দেশ্য পূরণ করা। বোতলের মুখ খোলার উদ্দেশ্য পানি খাওয়া, পকেট থেকে মানিব্যাগ বের করার উদ্দেশ্য কাউকে টাকা দেয়া। এরকম ছোট বড় শত শত লক্ষ্য বা উদ্দেশ্য আমাদের প্রতিদিন পূরণ করতে হয়। কিছু কমন জিনিস রয়েছে যেগুলো মস্তিষ্কের অভ্যাসের অংশ হয়ে গেছে – একারণে সেগুলো করতে তাকে বাড়তি পরিশ্রম করতে হয় না। আবার কিছু জিনিসে সে অভ্যস্ত নয়। এগুলো করতে তার বাড়তি পরিশ্রম করতে হয়, যার ফলে মূল কাজের এনার্জি নষ্ট হয়। তাই কোন কাজটিতে মনোযোগী হওয়া প্রয়োজন, আর কোন কাজটি অপ্রয়োজনীয় – সেটা বুঝতে হবে।

মনে করুন আপনি ঢাকা থেকে কক্স বাজার যাবেন, এটা আপনার মূল উদ্দেশ্য। এটা জেনে আপনার এক বন্ধু বলল সে চট্টগ্রামে বসবাস করা এক আত্মীয়ের জন্য আপনার কাছে কিছু পাঠাতে চায়। আপনি তাকে না করতে পারলেন না, বলতেও পারলেন না যে কুরিয়ার সার্ভিস দিয়েই কাজটি করা যাবে, আপনার কাছে না পাঠালেও চলবে। এই কাজটি করতে গিয়ে আপনাকে চট্টগ্রামে নামতে হলো, এবং কক্সবাজার পৌঁছতে কয়েক ঘন্টা দেরি ও বাড়তি পরিশ্রম হল। সেই সাথে মূল উদ্দেশ্যের ক্ষতি হয়ে গেল।

এই কথাটি শুধুমাত্র উদাহরন দেয়ার জন্য বলা। কিন্তু এই উদাহরন আমাদের কাজের সাথেও মিলে যায়।

Image result for keep at your goal

আমরা একটি লক্ষ্য পূরণের জন্য সেটিকে ছোট ছোট লক্ষ্যে ভাগ করে নিই। যা আমাদের কাজটি সহজে করতে সাহায্য করে। এই ছোট লক্ষ্যগুলো মূল কাজের সাথে সম্পৃক্ত। কিন্তু যদি এর বাইরেও বিভিন্ন দিকে মনোযোগী হওয়ার চেষ্টা করেন, তবে মূল কাজের ক্ষতি হতে বাধ্য।

ঢাকা থেকে কক্সবাজার যাওয়ার পথে একটি ডাইরেক্ট বাস বেশ কয়েকবার থামে। যাত্রীদের খাওয়াদাওয়া ও অন্যান্য জরুরী প্রয়োজন মেটানোর জন্য এর প্রয়োজন আছে। কিন্তু চট্টগ্রামে ডেলিভারি দিতে থামাটা কক্সবাজার ভ্রমণের পথে প্রয়োজনীয় ছিল না।

একটি লক্ষ্য পূরণের সময়ে শুধু সেই লক্ষ্যের সাথে সম্পর্কিত কাজেই মনোযোগ দেয়া উচিৎ। আপনি যদি সেই সময়ে অন্য কাজের দিকেও মাঝে মাঝে নজর দেন, তবে মূল কাজের ক্ষতি হবে। অনেক সময়ে কাজ ফেলে রাখতে রাখতে আমরা একসাথে অনেক কাজ জমিয়ে ফেলি, ফলে সব কাজ একসাথে করতে বাধ্য হই – এটা আমাদের পিছিয়ে দেয়। কাজেই সময়ের কাজ সময়ে করুন, এবং এক সময়ে শুধু একটি কাজেই পূর্ণ মনোযোগ দিন।

এক সময়ে এক কাজ মানসিক চাপকে সহনীয় পর্যায়ে রাখতে সহায়তা করে:

শিরোনামটি হয়তো আপনার কাছে একটু বিদঘুটে লাগছে। একটু বুঝিয়ে বললেই বুঝে যাবেন।

আমরা একটি কাজে যতই এক্সপার্ট হই না কেন, যে কোনও কাজ করতে গেলেই কিছুটা নার্ভাস লাগে। প্রতিটি মানুষেরই চাপ নেয়ার একটি নির্দিষ্ট ক্ষমতা আছে। কারও হয়তো বেশি, কারও হয়তো কম – কিন্তু সবারই একটা লিমিট আছে।

one thing at a time picture

আপনি যদি এক সময়ে একটি কাজেই পূর্ণ মনোযোগ দেন, তবে আপনার মানসিক চাপও কম থাকবে। কিন্তু আপনি যদি এক সময়ে দুইটি, তিনটি বা তারচেয়ে বেশি কাজ নিয়ে চিন্তা করেন, এবং সবগুলো একসাথে করতে যান – তবে আপনার ওপর ভয়াবহ মানসিক চাপ পড়বে।
যদি ৪টি কাজে একসাথে হাত দেন, তবে ১টি নিয়ে ব্যস্ত থাকার সময়েও বাকি ৩টির চিন্তা আপনার মনে চাপ সৃষ্টি করবে। এতে করে কোনও কাজেই আপনি পুরোপুরি মনোযোগ দিতে পারবেন না। এক সময়ে মাত্র একটি কাজে হাত দিলে আপনার যতটা মানসিক চাপ নিতে হত, একসাথে অনেকগুলো কাজে মনোযোগী হওয়ার কারণে তারচেয়ে কয়েক গুণ বেশি চাপ নিয়ে আপনাকে কাজ করতে হবে। এতে সবগুলো কাজেরই মান নষ্ট হবে। কাজেই প্রতিটি কাজ করার সময়ে শুধুমাত্র সেই কাজটিরই চাপ নিন। অযথা অতিরিক্ত চাপ নেয়ার কোনও প্রয়োজন নেই।

অন্যদের সাথে আপনার ব্যবহার ভালো থাকবে:

মন বিক্ষিপ্ত থাকলে মেজাজ ক্ষিপ্ত হবেই। আপনি নিজেও হয়তো খেয়াল করবেন, দারুন ব্যস্ততার মাঝে মেজাজও খিটখিটে থাকে। কেউ কিছু বললেই ধমক দিতে ইচ্ছা করে। সব সময়ে এরকম করতে থাকলে মানুষের কাছে নিজের গ্রহণযোগ্যতা হারিয়ে ফেলবেন। এমনকি খুব কাছের মানুষরাও দূরে সরে যেতে
Image result for confident man

উন্নতির জন্য এবং বড় লক্ষ্য অর্জনের জন্য ব্যস্ততার প্রয়োজন আছে। কিন্তু সেই ব্যস্ততা হতে হবে গোছানো। আপনি যদি একসাথে অনেকগুলো কাজ করতে যান, তখন আপনার ফোকাস বারে বারে শিফট করবে, এতে আপনার মুডও একরকম থাকবে না। কোনও কাজও ঠিকমত হবে না। এর ফলে মেজাজ খারাপ হওয়াই স্বাভাবিক।

এই অভ্যাস যদি বাদ দিতে পারেন, তবে নিজেই দেখতে পাবেন যে অন্যদের প্রতি আপনার আচরণও অনেক সুন্দর হয়ে উঠেছে।

সমস্যার সমাধান দ্রুত করতে পারবেন:

আমরা যখন বিভিন্ন কাজ একসাথে করতে যাই, তখন আমাদের চিন্তাগুলোও অগোছালো হয়ে পড়ে। কোনওকিছু নিয়েই আমরা মনোযোগ দিয়ে চিন্তা করতে পারি না। যার ফলে চিন্তাগুলোও কার্যকর সমাধান দিতে পারে না।

on target

যে কোনও কাজ করতে গেলে তা নিয়ে চিন্তা ভাবনা করতে হয়। সব কাজেই কিছু না কিছু সমস্যা আসেই। যখন এক সময়ে একটি কাজ নিয়েই ব্যস্ত থাকবেন, তখন আপনার পুরো মনোযোগ সেই কাজের প্রতি থাকবে, ফলে সিদ্ধান্ত নেয়া ও সমস্যার সমাধান করা অনেক বেশি সহজ হবে।

যে বিষয় নিয়ে চিন্তা করবেন, তার প্রতিটি খুঁটিনাটি আপনার মন পরিস্কার দেখতে পাবে।

আপনি যখন পূর্ণ ফোকাসে, কোনওরকম বিঘ্ন ছাড়া একটি সমস্যার সমাধান নিয়ে চিন্তা করতে পারবেন, তখন সব প্রশ্নের উত্তরই চোখের সামনে দেখতে পাবেন। কয়েকটি বিষয় নিয়ে মন ব্যস্ত থাকলে সমাধান সামনে থাকলেও তা দেখা যায় না।

আপনি সহজে ক্লান্ত হবেন না:

ধরুন আপনি কোম্পানীর আয়ের হিসেব করছেন। হিসেব করতে করতে এক সময়ে মনে হলো, শ্রমিকদের বেতনের হিসেবটাও একটু চেক করে দেখা দরকার। আপনি আয়ের হিসেব সরিয়ে রেখে বেতনের হিসেবে চোখ বুলাতে শুরু করলেন। একটু পর আবার আয়ের হিসেবে মনোযোগ দিলেন। এভাবে কিছুক্ষণ করার পর আপনার চোখের চারপাশে একটু পুড়তে লাগলো। তারপর কেমন জানি ঘুম ঘুম আসতে লাগলো।

আমরা অনেকেই বুঝি না, কাজ করতে গিয়ে তাড়াতাড়ি ক্লান্ত হওয়ার পেছনে একই সময়ে দুই তিনটি কাজ করতে যাওয়াটা সবচেয়ে বড় একটি কারণ।

not tired

যখন বার বার এক জায়গা থেকে আরেক জায়গায় ফোকাস করবেন, তখন মস্তিষ্ক দ্রুত ক্লান্ত হয়ে পড়বে। যেখানে ৮ ঘন্টা পূর্ণ এনার্জিতে কাজ করতে পারতেন, সেখানে ৬ ঘন্টা কাজ করাই কঠিন হয়ে যাবে। শরীর ম্যাজ ম্যাজ করবে, বার বার হাই উঠবে – ইত্যাদি ইত্যাদি। হয়তো আপনি এই পদ্ধতিতে কোনওরকমে দু’টি কাজ শেষ করতে পারবেন – কিন্তু কোনওটাই তেমন ভালো হবে না।

এর বদলে যদি একে একে কাজগুলোতে হাত দেন, এবং দুই কাজের মাঝে আধা ঘন্টার একটি বিরতি নেন, তবে দেখবেন অনেকট চটপট কাজ করতে পারছেন। মনোযোগ দিতেও কোনও সমস্যা হচ্ছে না।

এই ব্যাপারে খুব বেশি কিছু বলব না, শুধু অনুরোধ করব, ব্যাপারটি একটু পরীক্ষা করে দেখতে। আজ দুই কাজ একসাথে করুন, আর কাল একটি কাজ শেষ করে আরেকটি ধরুন – মনোযোগী হওয়ার কৌশল হিসেবে কোনটি ভালো – তা নিজেই বুঝতে পারবেন।

পরিশিষ্ট:

বর্তমানে মনোবিজ্ঞানী, পারফর্মেন্স কোচ ইত্যাদি মানুষেরা বেশ জোরেশোরে মাল্টিটাস্কিং এর পেছনে লেগেছেন। মাল্টিটাস্কিং করার সময়ে মনে হয় যে আপনি অনেক কাজ করছেন, কিন্তু ফলাফল অনেক খারাপ হয়। এরচেয়ে যদি রুটিন করে মনোযোগী হওয়ার কৌশল অবলম্বন করে একে একে কাজ গুলো সারা যায় – তাতে অনেক ভালো ফলাফল পাওয়া সম্ভব।


এই লেখা পড়ে যদি আপনি নতুন কিছু জানতে পারেন, তবে আমাদের অনুরোধ থাকবে এই বিষয়গুলো সত্যি সত্যি কাজে লাগান। এই পদ্ধতি কাজে লাগিয়ে অনেকেই তাঁদের কাজের মান আগের চেয়ে কয়েক গুণ ভালো করে ফেলেছেন। আপনি যদি একজন মাল্টিটাস্কার অথবা মাল্টি থিংকার হয়ে থাকেন – তবে এখনই অভ্যাসটি বদলে ফেলার সময় ।

যদি মনোযোগী হওয়ার জন্য মাল্টিটাস্কিং বাদ দেয়ার কৌশলটি আপনার ভালো লেগে থাকে, তবে এখনই এটি চর্চায় নিয়ে আসুন। কেমন ফলাফল পাচ্ছেন, তা আমাদের জানাতে ভুলবেন না। আর যদি মনে হয় এই লেখাটি অন্যদেরও কাজে লাগবে, তবে এটি শেয়ার করে সবাইকে দেখার সুযোগ করে দিন। আপনাদের সাফল্যেই আমাদের সার্থকতা।

আপনার জন্য:

ঢিলেমি বা দীর্ঘসূত্রিতার ৮টি ভয়াবহ কুফল

সফল ও দক্ষ মানুষদের ৭টি কমন অভ্যাস যা আপনারও করা উচিৎ

সত্যিকার বিজয়ী ও পরাজিতদের মাঝে ৮টি পার্থক্য: আপনি কোন দলে পড়েন?

ইগো আপনার কি ক্ষতি করে এবং এর থেকে মুক্তির উপায়

হাই পারফর্মারদের ৬টি অভ্যাস: যেভাবে সাধারন মানুষেরা অসাধারন হয়ে ওঠেন

3 thoughts on “পূর্ণ মনোযোগী হওয়ার কৌশল: এক সময়ে মাত্র একটি কাজে মনোযোগ দিন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *