কম বয়সে ধনী হওয়ার মাইন্ডসেট: দি মিলিওনেয়ার ফাস্টলেন – বুক রিভিউ


  • By
  • February 14th, 2019
  •    
  • পড়তে সময় লাগবে: 10 minutes
  • 5,122 views
কম বয়সে ধনী হওয়ার উপায়
10 mins read

প্রথমেই বলে রাখি, এটি কোনও সস্তা দরের ইনফোমার্শাল বুক নয়, যেগুলো আপনাকে ৩০ দিনে/১ বছরে ধনী হওয়ার উপায় বলবে। এই বইটির লেখক নিজে ৩১ বছর বয়সে মিলিওনেয়ার হয়েছেন – কিন্তু তা হতে তাঁকে বহুদিন পরিশ্রম করতে হয়েছে আর বুদ্ধি খাটাতে হয়েছে – কিন্তু তিনি বুড়ো হওয়ার আগে মিলিওনেয়ার হতে পেরেছেন।

বেশিরভাগ মানুষই যেখানে বহু বছর পরিশ্রম করে টাকা জমিয়ে জমিয়ে শেষ বয়সে ধনী হয়ে আরামে জীবন কাটানোর পরিকল্পনা করে – লেখক সেখানে তরুণ বয়সেই ধনী হয়ে সেই ধন উপভোগ করার পদ্ধতি দেখাতে চেয়েছেন। বুক রিভিউটি পড়তে পড়তে আপনি এই ব্যাপারে আরও বিস্তারিত জানতে পারবেন।

বুক রিভিউটি বেশ দীর্ঘ কারণ, আমরা এই বইয়ের শিক্ষনীয় ব্যাপারগুলো যতটা সম্ভব বিস্তারিত তুলে ধরার চেষ্টা করেছি, যাতে মূল বইটি না পড়েও আপনি এর আইডিয়াগুলো যথেষ্ঠ ভালো করে আত্মস্থ করতে পারেন।

 দি মিলিয়নেয়ার ফাস্টলেন এর লেখক:

দি মিলিওনেয়ার ফাস্টলেন এম জে ডিমার্কো এর লেখা একটি বেস্ট সেলিং ফাইনানশিয়াল সাকসেস বিষয়ক বই। লেখক ছাড়াও ডিমার্কোর আরও একটি পরিচয় – তিনি একজন সফল উদ্যোক্তা। বেশ কয়েকটি সফল ব্যবসা তাঁর হাত ধরে গড়ে উঠেছে। তিনি limos.com এর প্রতিষ্ঠাতা ও সাবেক সিইও।এই কোম্পানীটি তিনি মোট দুইবার বিক্রী করেন। প্রথমবার বিক্রী করার পর ক্রেতারা সেটি খুব ভালো মত চালাতে পারেনি। তিনি কম দামে আবার সেটি কেনেন। তারপর আবার বিশাল লাভে বিক্রী করেন। ২৬ বছর বয়সেও মায়ের সাথে বাস করা ডিমার্কো মাত্র ৩৩ বছর বয়সে মাল্টি মিলিওনেয়ার হয়ে যান।

[ লেখক এম জে ডিমার্কো ও তাঁর প্রিয় গাড়ি ]
ছোটবেলা থেকেই তাঁর স্বপ্ন ছিল তিনি একটি ল্যাম্বারগিনির মালিক হবেন। এবং তিনি কম বয়সেই বুঝতে পেরেছিলেন, ল্যাম্বরগিনির মালিক হতে হলে তাঁকে ব্যবসা করতে হবে। চাকরি করে এই জিনিসের মালিক হতে গেলে তাঁকে বুড়ো হয়ে যেতে হবে, যে বয়সে গাড়ির স্পিড তোলার মত জোশ আর তাঁর মাঝে থাকবে না।

চলার জন্য তাঁকে অবশ্য বেশ কিছু ছোট ছোট চাকরি করতে হয়েছে। এর মধ্যে একটা ছিল লিমুজিন গাড়ি চালানো। লিমু কেনার সামর্থ্য খুব কম লোকেরই হয়। বেশিরভাগই ভাড়ায় চালিত। এরকম এক যাত্রী তাঁকে জিজ্ঞাসা করেছিলেন, নিউ ইয়র্ক সিটিতে লিমুজিন কিভাবে পাওয়া যায়? – এই প্রশ্ন থেকেই তাঁর মাথায় লিমু ডট কম এর আইডিয়া এসেছিল। যারা লিমু খুঁজছেন, এবং যাঁরা ভাড়া দিতে চাইছেন – তাদের মধ্যে একটা যোগাযোগ ঘটিয়ে দিয়ে মাঝখান থেকে মুনাফা অর্জন করাই ছিল যার উদ্দেশ্য। – নিশ্চই উবারের কথা আপনার মাথায় আসছে? – আসলে লিমু ডট কম এর শুরুটা হয়েছিল সেই ২০০৭ সালে।

যাই হোক, লিমুর পর ডিমার্কো একে একে আরও কয়েকটি ব্যবসার সাথে জড়িত হন, এবং রীতিমত ধনী হয়ে ওঠেন। ল্যাম্বরগিনির স্বপ্ন তো পূরণ হয়েছেই – সাথে আরও অনেক কিছুই হয়েছে। চাইলে তিনি সারাজীবনে আর কোনও কাজ না করেও পায়ের উপর পা তুলে কাটিয়ে দিতে পারবেন।

এত কম বয়সে তাঁর এই সাফল্য আসলেও এর পেছনে ছিল অনেক দিনের সাধনা ও পরিশ্রম। তাঁর অভিজ্ঞতা ও মাইন্ডসেট কাজে লাগিয়ে যেন অন্যরাও ৬০ বছরে ব্যাঙ্কে মোটা অংকের টাকা জমানোর বদলে, ৪০ এর আগেই ধনী হতে পারে – তাই তিনি দি মিলিওনেয়ার ফাস্টলেন বইটি লিখেছেন। প্রকাশের পর থেকেই বইটির বিক্রী দেখার মত।

পরবর্তী অনেক তরুণ মিলিওনেয়ারই তাঁর বই থেকে উপকার পাওয়ার কথা স্বীকার করেছেন।

মূল ধারণা: 

কম বয়সে দ্রুত ধনী হওয়াই মূলত এই বইটির মূল কথা। তবে তিনি বার বার বলেছেন, কম বয়সে ধনী মানে রাতারাতি ধনী নয় – এর জন্য অবশ্যই আপনাকে কাঠখড় পোড়াতে হবে।

লেখক কম বয়সে ধনী হওয়ার মাইন্ডসেট ও উপায় বলার পাশাপাশি তিনি আগের যুগের একটি জনপ্রিয় ধারণাকে বাতিল করেছেন। ধারণাটি হল: “পড়াশুনায় ভালো রেজাল্ড করো, ভালো একটি চাকরিতে কঠোর পরিশ্রম করো, টাকা জমাও, শেষ বয়সে আরাম করো”

এই পুরাতন ধারণা থেকে বের হয়ে এসে লেখক নতুন যুগের সাথে তাল মিলিয়ে শেষ বয়সে আরাম করার বদলে, তরুণ বয়সেই মুক্ত হয়ে যাওয়ার কথা বলেছেন। সেইসাথে, তাঁর জিনের জন্য যেসব মাইন্ডসেট কার্যকর ভূমিকা রেখেছে – সেগুলো বইয়ে বর্ণনা করেছেন – যেন নতুনরা সেখান থেকে শিখে নিজেদের জীবনে কাজে লাগাতে পারে।

দি মিলিওনেয়ার ফাস্টলেন বুক রিভিউ:

এম জে ডিমার্কোর বেস্ট সেলার বইটি মোট ৮টি মূল ভাগে বিভক্ত। চলুন প্রতিটি ভাগে লেখক কি বলেছেন – তার মূল আইডিয়াগুলো জেনে নেয়া যাক।

১ম ভাগ: উপলব্ধি

ডিমার্কো আমেরিকার শিকাগোর খুব সাধারণ একটি পরিবারে বেড়ে উঠেছিলেন। মোটাসোটা মার্কোর তেমন কোনও বন্ধু ছিল না। খেলাধুলায় ছিলেন একদমই খারাপ; পড়াশুনায়ও খুব একটা ভালো ছিলেন না। তাঁর দিন কাটতো টিভি দেখে আর ভিডিও গেম খেলে।

তবে সেই অল্প বয়সে ঘটা একটি ঘটনাই তাঁর জীবনের মোড় ঘুরিয়ে দেয়। আইসক্রিমের দোকানে যাওয়ার সময়ে তাঁর চোখে পড়ে ঝকঝকে একটি ল্যাম্বারগিনি কাউন্টাক। গাড়িটি দেখামাত্রই তিনি গাড়ির প্রেমে পড়ে যান। একটু পর তিনি গাড়ির মালিককে দেখতে পান। লোকটির বয়স আনুমানিক ২৫-২৬; পরনে ঢোলা ফ্লানেল শার্ট আর জিন্স প্যান্ট।

লোকটিকে দেখে তাঁর কোনওভাবেই মালিক বলে বিশ্বাস হচ্ছিল না। তিনি ধারণা করেছিলেন এমন একটি গাড়ির মালিক হবে বেশ বয়স্ক একজন লোক। সেই সময়ে তিনি শুনতেন – কম বয়সে বড়লোক হওয়াটা অসম্ভব ব্যাপার। সত্যিকার বড়লোক হতে হতে একজন মানুষের এত বয়স হয়ে যায় যে, তার সেই সৌভাগ্য উপভোগ করার বয়স থাকে না। এগুলো আসলে ধনী লোকটির উত্তরাধিকারীরা উপভোগ করে। ডিমার্কোর সন্দেহ হল, লোকটি আসলেই গাড়ির মালিক কি না। তবে সরাসরি জিজ্ঞেস করা অভদ্রতা হবে, তাই তিনি লোকটিকে প্রশ্ন করলেন, “আপনি কি কাজ করেন যে এত চম‌ৎকার একটি গাড়ি কিনতে পেরেছেন?”

ড্রাইভ করে চলে যাওয়ার আগে লোকটির এক কথায় জবাব ছিল, “আমি একজন আবিষ্কারক”। গাড়িটি লোকটি নিজের টাকায় কিনেছে – এই ব্যাপারে নিশ্চিত হওয়ার পর থেকেই লেখক তাঁর জীবনের লক্ষ্য ঠিক করে ফেলেন। প্রচলিত ধারণা অনুযায়ী ভালো চাকরি করে টাকা জমিয়ে জমিয়ে শেষ বয়সে টাকার মালিক হয়ে রিটায়ার করার বদলে, তিনি ঠিক করলেন তিনি তখন থেকেই কাজ শুরু করবেন – যেন তিনি অল্প বয়সে ধনী হতে পারেন।

লেখক বলেন, সেই সময়ে তাঁর ধারণা হয়েছিল ধনী হতে হলে হয় তাকে বড় খেলোয়াড়, অভিনেতা, সেলিব্রিটি, অথবা দারুন প্রতিভাবান আবিষ্কারক টাইপের কিছু একটা হতে হবে। কিন্তু পরে তিনি আবিষ্কার করলেন, এসবের আসলে কোনও দরকার নেই। সাধারণ একজন মানুষও কম বয়সে ধনী হতে পারে। এই বিষয়ে সামনে আরও আলোচনা করা হবে।

২য় ভাগ: ধনী হওয়া মানে পথের শেষ নয় – পথ চলা

দ্বিতীয় ভাগে এসে লেখক বলেন, সারাজীবন পরিশ্রম করে টাকা জমিয়ে ধনী হওয়া মানে আপনি আসলে জীবনের খেলায় হেরে গেছেন। এটা করতে গেলে আপনাকে দশকের পর দশক ধরে অন্যের জন্য খেটে যেতে হবে। সম্পদশালী হওয়ার জন্য তরুণ বয়সই আদর্শ সময় – যে সময়টিতে আপনি সম্পদকে উপভোগ করতে পারবেন। পাহাড়ে চড়তে পারবেন, সমুদ্রে সার্ফিং করতে পারবেন, মরুভূমি পাড়ি দিতে পারবেন, প্রিয়জনদের সাথে আনন্দ মুখর সময় কাটাতে পারবেন… এমন আরও অনেক কিছু করতে পারবেন।

বেশিরভাগ মানুষ বিশ্বাস করে যে, দীর্ঘ সময় ধরে একটা কিছু করতে থাকলে এক সময়ে ‘ঘটনা ঘটে’ – পথ চলার শেষে গন্তব্য খুঁজে পাওয়া যায়। মানুষ পথ চলা শেষের ঘটনার দিকে ফোকাস করে, বড় একটি কনট্রাক্ট পাবে, কোম্পানী বিক্রী করবে, লটারি জিতবে – ইত্যাদি ইত্যাদি।

কিন্তু লেখকের মতে, একজন মানুষ চাইলে এই দীর্ঘ পথকে ছোট করে ফেলতে পারে। সময় নয়, কতটা কাজ করা হল, সময়কে কত বেশি কাজে লাগানো গেল – এটাই আসলে আর্থিক সাফল্যের মূল কথা। আপনি যদি ১ ঘন্টায় ১০ টাকার কাজ করেন, তবে ১০ টাকা পাবেন। আর যদি আধা ঘন্টায় ২০ টাকার কাজ করেন – তবে সেটাই পাবেন।

যেসব কাজ করলে সেইসব বিশেষ ঘটনা ঘটে, সেগুলো খুঁজে বের করে, সেই কাজগুলো দ্রুত করতে পারলে বিশেষ ঘটনা – মানে আর্থিক সাফল্যও দ্রুত ঘটবে। কেউ ১০ দিনে ১০০% কাজ সারে কেউ ১০০ দিনে ১০% কাজ সারে।

কাজ করা মানে কিন্তু লেখক এখানে শুধু পরিমানে বেশি কাজ করার কথা বলছেন না।সঠিক পথে ও পদ্ধতিতে কাজ করলে ১০০ দিনের সমান অর্জন ১০ দিনে করা সম্ভব

লেখকের মতে, মানুষের জীবনের অর্থনৈতিক যাত্রা ৩ ধরনের রোডম্যাপ ধরে চলে: ১. সাইডওয়াক বা ফুটপাথ; ২.স্লো ওয়াক বা হাঁটা পথ; ৩. ফাস্টলেন বা দ্রুত চলার পথ

বইয়ের পরবর্তী ৩টি ভাগে তিনি এই রোডম্যাপগুলো ব্যাখ্যা করেছেন। এবং তারপরের ধাপগুলোতে সবচেয়ে ভালো রোডম্যাপ ধরে পথ চলার পদ্ধতি বাতলেছেন।

৩য় ভাগ: দি সাইডওয়াক

সাইডওয়াকার হল সেই মানুষগুলো যারা শেষ জীবনটা অভাবে কাটাবে। এটা তাদের নিয়তি।

লেখক বলেন, এই ধরনের মানুষ আজকের দিনটা কত ভালোভাবে উপভোগ করা যায় – শুধু তাই নিয়েই চিন্তা করে। উপভোগের পেছনে খরচ করতে তারা ধার করতেও দ্বিধা করে না। পকেটে ৫০০ ডলার থাকলেও তারা লেটেস্ট মডেলের ১০০০ ডলারের আইফোনটি বাজারে নামার দিনেই কিনতে চায় – ধার করে হলেও তাদের এটা লাগবেই।

তারা তাদের আবেগকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারে না এবং দীর্ঘমেয়াদের কোনও চিন্তাই করে না। রবার্ট কিওসাকি তাঁর রিচ ড্যাড পুওর ড্যাড বইয়েও একই ধরনের কথা বলেছেন।

সাইডওয়াকার হওয়া একটি বিপজ্জনক ব্যাপার কারণ হঠা‌ৎ চাকরি চলে যাওয়া, অর্থনৈতিক মন্দা, চুরি-ডাকাতি, ট্যাক্স ও সুদের হার বৃদ্ধি – ইত্যাদি কারণে এরা পথে বসে যেতে পারে। লেখক বলেন, সাইডওয়াকার মানে কিন্তু গরিব নয়। প্রচুর ধনী মানুষ, যেমন বড় খেলোয়াড়, শিল্পী, অভিনেতা, চাকরিজীবি আছেন যারা সাইডওয়াকার। তারা এমন ভাবে টাকা খরচ করেন যেন আজকের দিনটিই পৃথিবীর শেষ দিন। তাদের এই খরচ চলতেই থাকে, এবং একটা সময়ে গিয়ে যখন ইনকাম বন্ধ হয়ে যায় – তখনই এরা বিপদে পড়েন। মাইকেল জ্যাকসন শত শত মিলিয়ন ডলার কামিয়েছেন – কিন্তু তাঁর খরুচে স্বভাবের কারণে তাঁকে ঋণগ্রস্থ অবস্থায় দিনের পর দিন পার করতে হয়েছে।

লেখক বলেন, শুধু টাকা থাকলেই একজন মানুষ সম্পদশালী হয় না। দামী গাড়ি, বাড়ি, ক্যাশ টাকা থাকলেই মানুষ সুখী হতে পারে না। তাঁর মতে সম্পদ তিনটি বিষয়ের সমষ্টি: সুস্থ দেহ, পরিবার ও বন্ধুর ভালোবাসা, এবং স্বাধনতা। তিনি একে “3Fs” বলেছেন, এগুলো হল, “Fitness, family, freedom”. পূর্ণ স্বাধীনতায় বাঁচার জন্যই আসলে টাকার প্রয়োজন। কিন্তু টাকা ছাড়া বাকি দুটো (স্বাস্থ্য, পরিবার) জিনিসও লেখকের মতে মানুষের সম্পদের অংশ।

সাইডওয়াকারদের আরও একটি বড় সমস্যা হল, এরা নেশা, লটারি, আর জুয়ার মত বিষয়ে জড়িয়ে পড়ে। এমন বহু ধনী সেলিব্রেটি আছে যারা শুধু জুয়ার কারণে শেষ হয়ে গেছে।

একজন সাইডওয়াকারের আজ যতই টাকা থাক, সে যদি স্বভাব না বদলায় – তবে এক সময়ে না এক সময়ে সে আর্থিক ভাবে অসহায় হবেই।

 ৪র্থ ভাগ: স্লো লেন

এরা সাইডওয়াকারদের পুরো উল্টো স্বভাবের মানুষ। এরা সবকিছুই কালকের নিরাপত্তার জন্য জমিয়ে রাখতে চায়। পিঁপড়া যেমন শীত অথবা বর্ষার জন্য সারা বছর না খেয়ে খাবার গর্তে জমিয়ে রাখে – এরাও তাই। শেষ জীবনের আর্থিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে এরা সারা জীবন যা পায় – সব জমিয়ে রাখতে চায়।

লেখক বলেন – এটাও খুব একটা ভালো পরিকল্পনা নয়। কারণ, সম্পদ উপভোগ করার সেরা সময়ই হল তারুণ্য। সারাজীবন ধরে সরকার বা কোনও প্রতিষ্ঠানের জন্য গাধার মত খেটে হার্টের রোগ, কোমরের ব্যাথা নিয়ে সম্পদ কিভাবে উপভোগ করবেন? তাছাড়া আরও একটি ব্যাপার, টাকার মূল্য সব সময়ে একরকম থাকে না। সময়ের সাথে সাথে টাকার মূল্য কমে। আজ যে জিনিস ১০০ টাকায় পাওয়া যায় ৫ বছর পর তা কিনতে কম করে হলেও ৩০০ টাকা লাগবে। পরিসংখ্যান অনুযায়ী যারা এভাবে টাকা জমায়, তারা শেষে গিয়ে তাদের সম্পদের মূল্য ৫০% পর্যন্ত হারিয়ে ফেলে। অনেকেই এরকম বিপদে পড়ে। একটা কথা সাধারণ মানুষ বুঝতে চায় না যে, ব্যাংক যে সুদ দেয় তা আসলে একটি ধোঁকা। কয় টাকা কয় বছর পর কত মূল্যবান হবে – এটা তারা ভালো করেই জানে।

এছাড়া সারাজীবন চাকরি করে টাকা জমানোর মানসিকতা আপনাকে সারাজীবনই অন্যের দাস করে রাখবে। আপনি কখনওই সত্যিকার স্বাধীনতা উপভোগ করতে পারবেন না। একটা বয়সের পর নিজের জন্য কিছু করার মানসিকতাই নষ্ট হয়ে যাবে।

অনেকগুলো টাকা ব্যাংকে রেখে যখন আপনি অবসরে যাবেন, তখন দেখবেন সেই টাকা খরচ করে যেসব শখ মেটাবেন ভেবেছিলেন – সেগুলোর রুচিই আপনার নষ্ট হয়ে গেছে।

লেখক আমাদের ভেবে দেখতে বলেন যে, বেশিরভাগ চাকরির পেমেন্টই ডিউটি টাইমের ওপর নির্ভর করে। আপনি চাইলেই দিনে ২৪ ঘন্টার বেশি কাজ করতে পারবেন না। আর ২৪ ঘন্টা কাজ করা কোনও মানুষের পক্ষেই সম্ভব নয়। ওভার টাইম করে টাকা জমাবেন? কয় ঘন্টা ওভারটাইম করবেন? আর সব চাকরিতে এই সুযোগও নেই। ছুটির দিনে এবং ওয়ার্কিং ডে-তে ওভারটাইম করতে গিয়ে আপনি আপনার প্রিয়জনদের সঙ্গ থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। এই সময়টা আপনি নিজে কিছু শেখার পেছনেও ব্যয় করতে পারতেন, অথবা নিজের ব্যবসা গড়ার কাজে লাগাতে পারতেন। এভাবে হয়তো কিছু বাড়তি টাকা রোজগার হবে – কিন্তু মানসিক ও শারীরিক ভাবে আপনি ক্ষতিগ্রস্থ হবেন।

স্লো-ওয়াক মানসিকতার সবচেয়ে বড় সমস্যা হল, কোনও কারণে যদি আপনার কাজ করার দক্ষতা বা যোগ্যতা নষ্ট হয়ে যায় – তাহলেই আর আপনাকে কারও দরকার হবে না। আপনার বসের সাথে যত ভালো সম্পর্কই থাকুক না কেন – কাজ করতে না পারলে তিনি আপনাকে শুধু শুধু রাখবেন না। ভালো কাজ করে আপনি শুধু আশা করতে পারেন যে, আপনার পজিশন ও বেতন বাড়বে – কিন্তু সেটা অন্যের সিদ্ধান্তের ওপরই নির্ভর করবে। আর, বিশেষ করে সরকারি চাকরির ক্ষেত্রে শুধু পারফর্মেন্স ভালো করলেই হয় না, সাথে আরও অনেক কিছু মেইনটেন করতে হয়।

এইসব কারণে স্লো ওয়াকার হলেই যে শেষ জীবণেও আপনি ধনী হতে পারবেন – এই নিশ্চয়তা দেয়া যায় না।

৫ম ভাগ: ফাস্টলেন রোডম্যাপ

স্লো-লেন পদ্ধতির সমালোচনা করলেও লেখক স্বীকার করেন, ফাস্টলেন পদ্ধতির অনেক আইডিয়াই স্লো লেন থেকে নেয়া। তবে ফাস্টলেন পদ্ধতিতে সময় অনেক কম লাগে। অনেক বেশি স্মার্ট পদ্ধতি এটি। লেখক বলেন, সহজে ধনী হওয়ার কোনও মেথড নেই। এটাও সহজে ধনী হওয়ার মেথড নয়। এটি আপনার ধনী হওয়াকে দ্রুত করবে।

লেখক স্লো-লেন ও ফাস্ট-লেন এর মূল পার্থক্যগুলো বোঝানোর জন্য কয়েকটি পয়েন্ট বলেছেন –

# স্লো ওয়াকাররা বড় অংকের টাকা জমাতে ৩০ বছরের মত সময় নেয়, অন্যদিকে ফাস্টলেন পদ্ধতিতে ১০ বছরের মধ্যেই যথেষ্ঠ ধনী হওয়া সম্ভব।

#  স্লো ওয়াকার বা স্লো লেনারদের আয়ের অংক সম্পূর্ণ অন্যের ওপর নির্ভরশীল, অন্যদিকে ফাস্টলেনাররা তাদের আয়ের অঙ্ককে প্রভাবিত করতে পারে। পন্যের দাম বাড়িয়ে, প্রোডাকশন বাড়িয়ে – এবং অন্যান্য আরও উপায়ে।

# স্লো-লেনাররা কর্মচারী, আর ফাস্টলেনাররা মালিক হয়ে থাকে

# স্লো-লেনাররা মিউচুয়াল ফান্ড, স্টক ইত্যাদি ব্যবহার করে ধনী হওয়ার চেষ্টা করে, ফাস্টলেনাররা ধনী হওয়ার পর এগুলো থেকে বাড়তি ইনকাম করার চেষ্টা করেন।

ফাস্টলেনাররা শুরুর দিকে অনেক বেশি পরিশ্রম করে। আপনার ব্যবসার প্রথম ৫ থেকে ১০ বছর অমানুষিক পরিশ্রম করতে হবে। কিন্তু এই অমানুষিক পরিশ্রমের সবচেয়ে ভালো দিক হল, এই সময়টি পার হলে আপনাকে সারা জীবনে আর তেমন পরিশ্রম করতে হবে না। তখন আপনার অধীনে থাকা স্লো-লেনাররা আপনার হয়ে পরিশ্রম করবে। অটোমেটিক ভাবেই আপনার এ্যাকাউন্টে টাকা ঢুকবে – এবং আপনি যা খুশি তাই করতে পারবেন। – তবে প্রথম ৫-১০ বছর উপভোগের কথা একদম ভুলে যেতে হবে। দিনে ১২ থেকে ১৮ ঘন্টা খাটতে হবে।

তবে কঠোর পরিশ্রমই এক্ষেত্রে শেষ কথা নয়। যত কম সময়ের মধ্যে যত বেশি কাজ শেষ করা যায় – সেই দিকে খেয়াল রেখে কাজ করতে হবে। কম সময়ে বেশি কাজ হল এই পদ্ধতির মূল উদ্দেশ্য। স্লো-লেনাররা বেশি টাকার আশায় সময়কে প্রাধান্য দিয়ে কাজ করে, আর ফাস্ট লেনাররা বেশি আউটপুটের জন্য কাজ করে। স্লো লেনাররা যখন এক দিনের কাজকে তিন দিনের কাজ বানিয়ে ফেলে সেখান থেকে বেশি পেমেন্ট এর আশা করে, ফাস্ট লেনাররা তিন দিনের কাজ একদিনে শেষ করে পরের কাজটি দ্রুত শুরু করার চেষ্টা করে। এতে করে তাদের আর্থিক স্বাধীনতা অর্জন দ্রুত হয়।

এর পাশাপাশি ফাস্ট-লেনাররা অন্যদের দিয়েও যত বেশি সম্ভব কাজ করিয়ে নেয়ার একটি পদ্ধতি ঠিক করে নেয়। যাতে যে কাজ করতে তার নিজের ৩ দিন লাগতো, অন্য কয়েকজন মিলে তা এক দিনেরও কম সময়ে শেষ করতে পারে।

ফাস্ট লেনারদের প্রথম দিকের পরিশ্রম থেকে সাধারণত খুব বেশি আর্থিক লাভ হয় না। এটা দেখে স্লো লেনার মানসিকতার লোকেরা অনেক সময়ে তাদের নিয়ে হাসাহাসি করে। কারণ, তাদের মনে থাকে, কাজের পরিমান ও সময়ের হিসাবে একজন মানুষের টাকা পাওয়া উচি‌ৎ। কিন্তু ফাস্ট লেনাররা যখন তাদের একটি নিজস্ব সিস্টেম দাঁড় করিয়ে ফেলে – তখন হু হু করে টাকা আসতে শুরু করে – হাজারো পরিশ্রম করেও স্লো লেনাররা এত টাকা আয় করতে পারে না।

থিংক এ্যান্ড গ্রো রিচ এর লেখক নেপোলিয়ন হিল বলেন – “একটা নির্দিষ্ট সময় পর সত্যিকার ধনীদের কাছে এমন ভাবে টাকা আসতে শুরু করে – দেখে মনে হয় কেউ জাদু করছে”

এটা আসলে জাদু নয়, সঠিক পথ অবলম্বন করে একটি সিস্টেম দাঁড় করাতে পারলে এমনিতেই এমন ‘জাদু’ হয়। – ফাস্ট লেন এমন সঠিক পথগুলোর একটি।

 ফাস্ট লেনার হওয়ার দুই মূল শর্ত: ক) কিছু একটা সৃষ্টি করুন, খ) সময় ও সুদের ওপর নির্ভর করবেন না

ক) কিছু একটা সৃষ্টি করুন

মানুষের জন্ম হয় ভোক্তা বা কনজুমার হিসেবে। আপনার পন্য ও সেবার প্রয়োজন হবে, আপনি সেগুলো চাইবেন, সেগুলো কিনবেন। সবচেয়ে কম দামে সবচেয়ে ভালো পন্যটি পাওয়ার জন্য সবকিছু করতে পারবেন। টিভিতে বা ইন্টারনেটে চটকদার এ্যাড দেখে পন্য কেনার জন্য পাগল হয়ে যাবেন। লিমিটেড এডিশন বা এই ধরনের অফারে প্রলুব্ধ হবেন।

কম বয়সে ধনী বা বড়লোক

লেখক বলেন, ফাস্ট লেনে যাওয়ার প্রথম শর্তই হল ভোক্তার বদলে নিজেকে বিক্রেতা বা পন্যের স্রষ্টা ভাবা শুরু করা। চাকরি খোঁজার বদলে কিভাবে অন্যদের চাকরি দেবেন – সেই উপায় ভাবতে শুরু করা।

আপনি যখন ভোক্তার বদলে নিজেকে পন্য বা সেবার স্রষ্টা, এবং কর্মচারীর বদলে নিজেকে ভবিষ্য‌ৎ কর্মীদের বস হিসেবে দেখতে শুরু করবেন – তখন থেকেই আপনি ফাস্ট লেনের যাত্রী হবেন।

 খ) সময় ও সুদের ওপর নির্ভর করবেন না

লেখক বলেন, নিজের সময় ও শ্রমের পরিমানের বিনিময়ে টাকা পাওয়ার চিন্তার বদলে ‘টাকার গাছ’ লাগানোর চেষ্টা করা ফাস্ট-লেনার হওয়ার দ্বিতীয় শর্ত। টাকার গাছ লাগানো মানে এমন একটি সিস্টেম তৈরী করা, যেন আপনি ঘুমিয়ে থাকলেও আপনার ইনকাম হতে থাকে। সাধারণ ভাষায় একে ‘প্যাসিভ ইনকাম’ বা পরোক্ষ আয়ও বলা হয়।

আপনার যদি একটি প্রতিষ্ঠান থাকে, যেখান থেকে খাদ্যদ্রব্য উ‌ৎপাদন হয়, এবং সেটি চালানোর জন্য আপনার বিশ্বস্ত কর্মী রয়েছে – তাহলে আপনি না থাকলেও সেখান থেকে পন্য প্রস্তুত হবে এবং আপনার এ্যাকাউন্টে টাকা ঢুকবে।

গাছটি লাগানো থেকে ফল দেয়া শুরু করা পর্যন্ত আপনাকে তার পেছনে অনেক সময় ও শ্রম দিতে হবে – কিন্তু একবার গাছ পরিনত হয়ে গেলে, আপনাকে শুধু মাঝে মাঝে গাছে পানি ও সার দিতে হবে। বাকি কাজ গাছটি নিজেই করবে। মানে, যদি আপনার নিজের একটি লাভজনক প্রতিষ্ঠান থাকে, এবং সেটি চালানোর জন্য যোগ্য লোক নিয়োজিত থাকে, তবে একটা সময়ে আপনি এমনিতেই গায়ে হাওয়া লাগিয়ে ঘুরে বেড়াতে পারবেন। মাঝে মাঝে শুধু কাজের খোঁজ নিলেই চলবে।

ধনী হওয়ার উপায়

লেখক এই ধরনের টাকার গাছের উদাহরণ দিতে গিয়ে, পন্য ও সেবামূলক ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, ভাড়া দেয়া সম্পত্তি, এ্যাপ ও সফটঅয়্যার, বই, ওয়েবসাইট বা ব্লগ – ইত্যাদির কথা বলেছেন।

হ্যাঁ – এগুলোর উন্নয়ন ও প্রচারের জন্য আপনাকে অবশ্যই সময় দিতে হবে। কিন্তু এর একটি শক্ত ভিত গড়ে দেয়ার পর আপনি আর সারাদিন এর পেছনে সময় দেয়ার জন্য বাধ্য থাকবেন না।

স্লো-লেনাররা ধনী হওয়ার জন্য সুদ ও সময়ের ওপর নির্ভর করে। কারণ তাদের নিজস্ব কোনও প্রতিষ্ঠান বা পন্য থাকে না যেগুলো থেকে নিয়মিত আয় হয়। তারা একটি নির্দিষ্ট পরিমান টাকা ব্যাংকের মত প্রতিষ্ঠানে জমা রাখে – যেখান থেকে নির্দিষ্ট সময় পর পর সুদ আয় হয়। এখানে তাদের নিজেদের কোনও ভূমিকা থাকে না। এই ধরনের আয় বাড়ানোর জন্য আপনাকে আরও টাকা ঢালতে হবে, এবং ইনকামের হার বা শতকরা হিসাব কখনওই বাড়বে না। আপনি যে ব্যাংকে টাকা রাখবেন – সেই ব্যাংকের সুদের নির্দিষ্ট হার অনুযায়ী টাকা বাড়বে । কিন্তু প্রতিষ্ঠান বা পন্য থেকে আয়ের এই ধরনের কোনও সীমা নেই।আজ আপনার কোম্পানী থেকে ১০ টাকা আয় হলে, কাল সেই আয়ই ১০০ টাকা হয়ে যেতে পারে।

এর উল্টোটাও হয় – কিন্তু ফাস্ট-লেনার হতে হলে এই ঝুঁকিটুকু আপনাকে নিতেই হবে। ব্যবসা ও বাজার সম্পর্কে যদি আপনার যথেষ্ঠ জ্ঞান থাকে – তবে ঝুঁকির পরিমানও অনেক কমে আসে।

৬ষ্ঠ অংশ: নিজের ব্যাপারে সঠিক সিদ্ধান্ত নিন

লেখক বলেন, মিলিয়ন ডলারের গন্তব্যে পৌঁছাতে চাইলে প্রথমে সেখানে যাওয়ার জন্য একটি ভালো গাড়ি দরকার। আপনি কি ভাবছেন? – লেখক গাড়ি কেনার কথা বলছেন? – মোটেই না! সেই গাড়িটি আসলে আপনি নিজে।  একটি ভালো গাড়ি হওয়ার উপায় হল আপনি যা করতে চান – যে বিষয় নিয়ে কাজ করতে চান, সেই বিষয়ে নিজে একজন সেরা বিশেষজ্ঞ হতে হবে। শেখা ও চর্চার কোনও বিকল্প নেই।

রিলেটেড পোস্ট: যে কোনও ক্ষেত্রে সেরা মানুষ হওয়ার উপায়

তবে তার আগে আপনাকে দৃঢ় ভাবে সিদ্ধান্ত নিতে হবে যে, আপনি নিজের বেতন নিজে দেবেন। এই সিদ্ধান্ত নেয়ার পর চিন্তা করুন, কিভাবে তা দেবেন? – কোন জিনিসটা আপনি সবচেয়ে ভালো পারবেন? – সেই জিনিসটা যত ভালোভাবে পারা যায়, শেখার চেষ্টা করুন।

লেখক বলেন, আপনার জীবন কেমন হবে, তা আপনার সিদ্ধান্তের ওপর অনেকখানি নির্ভর করে। যত তাড়াতাড়ি ফাস্ট লেনার হওয়ার সিদ্ধান্ত নেবেন – তত তাড়াতাড়ি আপনার কাছে ফাস্ট লেনার হওয়ার পথ পরিস্কার হয়ে যাবে। গরিব হয়ে জন্মানো নয়, গরিবের মত চিন্তা করা ও সিদ্ধান্ত নেয়াই অভাব ও দারিদ্রের প্রধান কারণ।

ধরুন, দুইজন মানুষ ১০০ বছরের আয়ু নিয়ে পৃথিবীতে এসেছে, একজন ৫০ বছর বয়সে গিয়ে সিদ্ধান্ত নিল সে হিমালয় দেখবে। তারপর পথ চলা শুরু করল। আরেকজন ২০ বছর বয়সে একই সিদ্ধান্ত নিয়ে পথ চলা শুরু করল। এখানে হিমালয় দেখা যদি হয় জীবনের সবচেয়ে বড় অর্জন – তাহলে কে বেশি লাভবান?

লেখকের মতে, সিদ্ধান্ত নেয়ার ক্ষমতা মানুষের জীবনের সবচেয়ে বড় আশির্বাদ গুলোর একটি। কিন্তু বেশিরভাগ মানুষই এটার সঠিক ব্যবহার করতে পারে না। ফাস্ট লেনার হওয়ার সব যোগ্যতা থাকার পরও বেশিরভাগ মানুষ সিদ্ধান্তের কারণে স্লো লেনার বা সাইডওয়াকার হয়ে জীবন কাটায়। শুধুমাত্র চিন্তার ধরন বদলে একজন মানুষ তার জীবনকে ভালোর দিকে নিয়ে যেতে পারে।

ধরুন আপনার একটি গাড়ির প্রয়োজন, ১০ লাখ টাকার গাড়ি যে কাজ করে, ৫০ লাখ টাকার গাড়িও সেই কাজ করবে। এখন আপনি যদি লোন নিয়ে ৫০ লাখ টাকার গাড়িটি কেনেন, তবে আপনাকে সেই লোন শোধ করতে হবে।– অর্থা‌ৎ, সেই টাকাটি আপনাকে আয় করতে হবে। ১০ লাখ টাকার গাড়ির জন্যও লোন শোধ করতে হবে। এখানে যদি আপনি লাক্সারির চেয়ে প্রয়োজনকে প্রাধান্য দেন তাহলে ১০ লাখ টাকার গাড়িটি কেনার সিদ্ধান্ত নেবেন। শুধুমাত্র একটি বি.এম.ডব্লু লোগোর জন্য ৪০ লাখ টাকা বেশি খরচ করবেন – যে টাকাটি আপনি অন্য কাজে লাগাতে পারতেন? – ফাস্ট লেনার হলে আপনি কখনওই এই সিদ্ধান্ত নেবেন না।

বরং হিসেব করে যখন দেখবেন ৫০ লাখ টাকা ইনকাম করার ক্ষমতা আপনার আছে – তখন আপনি প্রয়োজন মেটানোর জন্য ১০ লাখ টাকার গাড়ি কিনবেন এবং বাকি ৪০ লাখ টাকা এমন কোথাও বিনিয়োগ করবেন – যেখান থেকে আপনার আরও টাকা আসে। তাছাড়া এই টাকা আয় করতে যে সময় খরচ হবে – সেই সময়ের মূল্য একটি লোগোর চেয়ে বেশি।

আর্থিক ভিত গড়ার সময়ে নিজের সময়ের মূল্য দেয়ার ব্যাপারে এম জে লিখেছেন, “যদি কেউ অনলাইনে গেম খেলে ঘন্টার পর ঘন্টা সময় নষ্ট করে – তবে সে কোনওদিনই খুব বেশি আর্থিক সাফল্য পাবে না। আমার টিভি দেখার দরকার নেই, কারণ আমি এমন একটি জীবন গড়তে সময় দিচ্ছি – যা এর চেয়েও অনেক আনন্দময়। সেই ভবিষ্য‌ৎ দেখতে পাওয়া মঙ্গলবার রাত আটটায় প্রচারিত কল্পকাহিনীর চেয়ে অনেক বেশি উপভোগ্য।

স্লো লেনাররা যেমন টাকার ব্যাপারে খুঁতখুঁতে, ফাস্ট লেনাররা সময়ের ব্যাপারে খুঁতখুঁতে।

৭ম ভাগ: অর্থের পথ

এই অংশে দ্রুত ও স্থায়ী ভাবে সম্পদশালী হওয়ার জন্য কিভাবে ব্যবসা করতে হবে – তার বর্ণনা দিয়েছেন।

এখানে তিনি ফাস্টলেন ব্যবসার ৫টি মূল নীতির বর্ণনা দিয়েছেন। আমরা সংক্ষিপ্ত আকারে সেগুলো তুলে ধরছি।

 ০১. শুধু টাকার জন্য ব্যবসা নয়

লেখক বলেন, শুধুমাত্র টাকা আয়ের জন্য কোনও ব্যবসা শুরু করবেন না। ফাস্ট লেনার হওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়ার সময়েই ভেবে দেখুন – কোন কাজটা আপনি করতে চান, এবং কি করতে সবচেয়ে ভালোবাসেন। সেটাই নিজের ব্যবসার বিষয় বানিয়ে ফেলুন।

লেখক আরও বলেন, ক্রেতারা যদি একবার টের পায় যে একটি ব্যবসার একমাত্র উদ্দেশ্য মালিককে বড়লোক বানানো – তাহলে সেই ব্যবসা আর বেশিদিন টিঁকবে না। ব্যবসা হতে হবে এমন – যেটি মানুষের কোনও একটি সমস্যার সত্যিকার সমাধান করে। এমনকি যদি আপনি আপনার ভালোলাগার কাজটিকে ব্যবসায় পরিনত করেন – তখনও যেন এটি মানুষের সমস্যার সমাধান করে। মানুষের কাজে না লাগলে আপনার পন্য বা সেবা তারা কেন নেবে?

০২. কঠিন শুরু

যে ব্যবসা শুরু করা যত কঠিন, সেই ব্যবসা করে ধনী হওয়ার সম্ভাবনা তত বেশি। আর যারা এই নীতির বাইরে থেকেও খুব ভালো ব্যবসা করতে পারেন, তাঁরা অবশ্যই তাঁদের কাজে সেরাদের সেরা।

উদাহরণ হিসেবে ই-কমার্স এর কথা ধরা যাক। সাধারণ ভোক্তাদের জন্য জেফ বেজোস প্রথমে আমাজন শুরু করেন। আর পাইকারি ব্যবসায়ীদের জন্য আলিবাবা ডট কম শুরু করেন জ্যাক মা। তাঁরা যখন শুরু করেছিলেন তখন এই ব্যবসা শুরু করা ছিল দারুন কঠিন। ইন্টারনেট বা ওয়েবসাইটের এত ব্যপক প্রচলন ছিল না। আর মানুষের কাছেও ই-কমার্স এর ধারণাটি ছিল প্রায় অজানা। কিন্তু এই কঠিন কাজ সম্ভব করেই তাঁরা আজ পৃথিবীর সেরা দুই ধনী ব্যক্তি।

কিন্তু এখন ই-কমার্স সবাই বোঝে। ওয়েবসাইট বানানো, বা ব্যবসায়ীদের দিয়ে পন্য আপলোড করানোও কঠিন কিছু না। কিন্তু এখন আর এই ধরনের সাইট খুলে বিলিওনেয়ার হওয়া প্রায় অসম্ভব। পে-পাল এর সহ প্রতিষ্ঠাতা পিটার থেইল এর জিরো টু ওয়ান বই এর মেথড ব্যবহার করে তাই নতুন কিছু শুরু করে কঠিন পথ পাড়ি দেয়াই ব্যবসা করে ধনী হওয়ার সবচেয়ে সহজ উপায়। আর ই-কমার্স এর মত প্রচলিত কিছুতে সফল হতে চাইলে একদম টপ লেভেলের কিছু নিয়ে আসতে হবে – না হলে বাদ দেয়াই ভালো।

০৩. পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ

ফাস্ট লেনার উদ্যোক্তা হওয়ার একটি অন্যতম শর্ত হল, আপনার ব্যবসার পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ আপনার হাতে থাকবে। আপনার পুঁজি দিয়ে যদি আপনি অন্য একটি প্রতিষ্ঠানের ফ্রাঞ্চাইজি / শাখা নেন – তবে সেটা খুব ভালো কিছু হবে না। অনেক সময়ে তারা নিজেরাই ব্যবসা গুটিয়ে নিতে পারে – যার ফলে আপনি পথে বসে যাবেন। ওয়ালমার্ট এর প্রতিষ্ঠাতা স্যাম ওয়ালটন এর ক্ষেত্রে প্রথমে এমনটাই হয়েছিল। যেখান থেকে শিক্ষা নিয়ে তিনি নিজের ব্যবসা খোলেন। এখন তাঁর কোম্পানীর ফ্রাঞ্চাইজিই সবচেয়ে বেশি।

আপনার ব্যবসার ব্যাপারে বড় পরিবর্তনের ক্ষমতা আপনার চেয়ে যদি অন্য কারও বেশি থাকে, তবে সেটা কখনওই ফাস্টলেন ব্যবসা নয়।

০৪. ব্যাপ্তি

ব্যবসার বেশ কয়েক ধরনের ব্যাপ্তি রয়েছে। পাড়া/মহল্লা, গ্রাম, শহর, বিভাগ, দেশ, আন্তর্জাতিক – এই কয়েকটি ব্যাপ্তিতে একটি ব্যবসা ছড়াতে পারে। (ইলন মাস্ক এটাকে মহাকাশেও নিতে চাইছেন) – একটি ব্যবসার ব্যাপ্তি যত বড়, এর ইনকামও তত বেশি। রতন টাটা যে তাঁর টাটা গ্রুপকে এত বড় কোম্পানী বানিয়েছেন – তার পেছনে এর ব্যাপ্তি বাড়ানোর একটি বড় ভূমিকা ছিল।

ব্যবসা শুরুর আগে খুব ভালো করে এ্যানালাইসিস করুন যে, এই ব্যবসাটির ব্যাপ্তি কতদূর যাওয়ার সম্ভাবনা আছে? – স্থানীয়, জাতীয়, বা আন্তর্জাতিক – কোন পর্যায়ে এর যাওয়ার সম্ভাবনা আছে? – কিভাবে এটাকে সেই পর্যায়ে নেয়া যা? – এই ব্যাপারগুলোকে খুব বেশি গুরুত্ব দিন।

 ৫. অটোমেটিক

লেখক বলেন, ফাস্ট লেন ব্যবসা হতে হলে একটি ব্যবসাকে একটা সময়ে অবশ্যই স্বয়ংক্রিয় বা অটোমেটিক হতে হবে। একটি নির্দিষ্ট সময় পরিশ্রম ও সময় ব্যয় করার পর যদি একটি ব্যবসা মূল উদ্যোক্তার উপস্থিতি ছাড়াই চলতে পারে – তবেই সেটা আদর্শ ফাস্টলেন ব্যবসা। অন্য কথায়, ‘money-tree’ বা টাকার গাছ। এই টাকা যদি সত্যিকার অর্থে উপভোগ করতে হয় – তবে অবশ্যই ব্যবসাটিকে অটোমেটেড হতে হবে।

একজন লেখকের একটি বই যদি বেস্ট সেলার হয় – তবে সেই বইয়ের রয়্যালিটি তিনি সারাজীবন পেয়ে যাবেন। তাঁকে আর সেটা নিয়ে চিন্তা করতে হবে না। নতুন বই ছাপাতে হলে সেটা প্রকাশকের মাথাব্যাথা। লেখককে শুধু মাঝে মাঝে বইয়ের প্রচার করতে হবে। গেম অব থ্রোনস এর লেখক জর্জ মার্টিন বা হ্যারি পটারের লেখক জে কে রাউলিং এমন সুবিধা ভোগ করেন। আমাদের দেশে লেখালেখিকে ব্যবসায়িক দৃষ্টিতে না দেখা হলেও, বাইরে একে খুব লাভজনক একটি ব্যবসা হিসেবে ধরা হয়। একটি বইয়ের পেছনে সময় ও শ্রম ব্যয় করার আগেই লেখক সেখান থেকে কত আয় হতে পারে – তার ছক করে নেন। যে সমস্যার সমাধান কেউ এখনও করেনি, তা সমাধান করে বিক্রী করা, নতুন পন্য বা সেবা আবিষ্কার করা, প্রচলিত পন্য বা সেবার উন্নতি করা – ইত্যাদি উদ্ভাবনী বিষয়গুলো অটোমেটিক ব্যবসার জন্য আদর্শ।

বিল গেটস যদি আর কোনওদিন মাইক্রোসফটের অফিসে না যান, তবুও তাঁর টাকা তাঁর একাউন্টে চলে আসবে। জেফ বেজোস, জ্যাক মা – এঁদের কথাও তাই। ওয়ারেন বাফেট তো বছরে একবার সিইওদের চিঠি পাঠিয়েই খালাস। ফাস্ট লেনার হতে আপনাকে এত বড় ব্যবসা করতে হবে না – আপনাকে শুধু সেই সিস্টেমটি দাঁড় করাতে হবে – যাতে আপনি না থাকলেও ব্যবসাটি খুব ভালোভাবে চলে। তাহলেই আপনি পুরো দুনিয়া ঘুরে বেড়াতে পারবেন, বা পরিবারের সাথে সময় কাটাতে পারবেন।

৮ম ভাগ: ইভেন্ট ও প্রসেস এর পার্থক্য ও দ্রুত সম্পদ অর্জন

বইয়ের শেষ ভাগে এসে লেখক এম জে ডিমার্কো দ্রুত সম্পদ অর্জনের জন্য আইডিয়ার দ্রুত বাস্তবায়নের ব্যাপারে কথা বলেছেন।

লেখকের মতে, কোনও একটি আইডিয়া মাথায় আসা একটি ইভেন্ট বা ঘটনা। অনেক মানুষের মাথায় অনেক সময়েই ভালো আইডিয়া আসে। কিন্তু তাদের মধ্যে খুব কম মানুষই সফল হয়। আইডিয়াকে কাজে রূপান্তর করার প্রক্রিয়া হল প্রসেস। যারা দ্রুত প্রসেস শুরু করে তারাই দ্রুত সফল হয়। আইডিয়া নিয়ে কাজ শুরু করলে, সেই পথে কিছু ভুল হয় – সেই ভুলগুলো ঠিক করতে করতে আইডিয়াটি পারফেক্ট রূপ নেয়। আর তখন থেকে ইনকাম আসতে শুরু করে – এবং ধীরে ধীরে প্রতিষ্ঠান দাঁড়িয়ে গেলে, উদ্যোক্তাকে আর ততটা পরিশ্রম করতে হয় না।

শেষ কথা: প্রতিযোগীতা নিজের সাথে

বেশিরভাগ ব্যবসায়ী একটি বড় ভুল করে। ক্রেতাদের দিকে নজর না দিয়ে তারা প্রতিযোগী প্রতিষ্ঠান আর লাভের অংকের দিকে বেশি মনোযোগ দেয়। ফাস্ট লেনাররা নিজের সাথে প্রতিযোগীতা করে। কাস্টোমাররা হয় তাদের সবচেয়ে বড় বস। কাস্টোমারদের খুশি করতে পারলে তারাই একটি ব্যবসাকে অনেক দূরে নিয়ে যায়।

তাই, ফাস্ট লেন ব্যবসার প্রধান গুরুত্ব হওয়া উচি‌ৎ পন্য ও সেবার মান উন্নয়ন – যাতে ক্রেতারা সন্তষ্ট থাকে। এটাই এক সময়ে একটি কোম্পানীকে বড় ব্র্যান্ডে পরিনত করে। বেশিরভাগ ব্যবসার প্রথম অবস্থায় বিজ্ঞাপন বা প্রচারের জন্য তেমন অর্থ থাকে না। সন্তষ্ট কাস্টোমাররাই এসব ব্যবসার সবচেয়ে ভালো ব্র্যান্ড এ্যাম্বাসেডর। তাই ব্যবসার প্রথম দিকে ক্রেতার সন্তষ্টি যত ভালো নিশ্চিত করা যাবে – ব্যবসা ততই দ্রুত বেড়ে উঠবে।

পরিশিষ্ট:

দি মিলিওনেয়ার ফাস্টলেন বইটি একদম শূণ্য থেকে শুরু করে কম বয়সেই স্থায়ী ভাবে ধনী হওয়ার উপায় বিস্তারিত ভাবে বর্ণনা করেছে। আমরা চেষ্টা করেছি যথা সম্ভব বিস্তারিত ভাবে বইটির বিষয়বস্তু আপনার সামনে তুলে ধরার। সফল হওয়ার পথে যদি এই বুক রিভিউ আপনাকে একটু হলেও সাহায্য করে – তবেই আমাদের চেষ্টা সফল হবে।

রিভিউটি কেমন লেগেছে – তা আমাদের কমেন্ট করে জানান। সাফল্য ও আত্ম উন্নয়ন বিষয়ে এমন লেখার জন্য আমাদের বুক রিভিউ সেকশন ভিজিট করুন।

আপনার জানা এমন কোনও ভালো বই থাকলে আমাদের রিকমেন্ড করতে পারেন, আমরা সেটির রিভিউ প্রকাশ করার চেষ্টা করব।

সব শেষে, যদি মনে হয় এই লেখাটি পড়ে অন্যরাও উপকৃত হবেন, তবে শেয়ার করে সবাইকে দেখার সুযোগ করে দিন।

সাফল্যের পথে লড়াকু সব সময়ে আপনার সাথে আছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *